করোনার চিকিৎসায় ৬ ওষুধ আবিষ্কার করলো রাশিয়া

View: 116

করোনার চিকিৎসায় ৬ ওষুধ আবিষ্কার করলো রাশিয়া

21 Mar, 2020    0


বিশ্বব্যাপী মৃত্যুতরঙ্গ বয়ে চলেছে প্রাণঘাতী করোনা। দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে এর মরণছোবল।  বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানরা রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন এ ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায়। আর উন্নত দেশের ডাক্তার গবেষকরা কাজ করে যাচ্ছেন এ ভাইরাসের ভ্যাকসিন তথা প্রতিষেধক উদ্ভাবনে। এবার সেই তালিকায় নাম লেখালো রাশিয়া। এরমধ্যে দেশটি প্রাণীর শরীরে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক পরীক্ষার কাজ শুরু করেছে।

শুক্রবার রাশিয়ার কনজ্যুমার হেলথ রেগুলেটর এ তথ্য জানিয়েছে। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের তথ্যানুযায়ী, গত সোমবার থেকে সাইবেরিয়ার একটি ল্যাবরেটরিতে প্রাণীর শরীরে করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য প্রতিষেধকের প্রটোটাইপ পরীক্ষার কাজ শুরু করেছে রাশিয়া। নভোসিবির্স্ক শহরের ভেক্টর স্টেট ভাইরোলজি অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি সেন্টার ছয়টি ভিন্ন ভিন্ন প্রযুক্তি প্ল্যাটফর্মে ওই পরীক্ষা শুরু করেছে বলে জানান স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপক। রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিন জানান, দেশটির ডাক্তাররা ভ্যাকসিন আবিষ্কারে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। করোনার প্রতিষেধক হিসেবে ছয়টি ওষুধ আবিষ্কার করেছেন তারা। এখন এসব ওষুধের ওপর পরীক্ষা করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, দেশের গবেষকরা এগুলো খুব অল্প সময়ের মধ্যে আবিষ্কার করেছেন। এক্ষেত্রে আধুনিক বায়োটেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে। নিকট ভবিষ্যতে এ ভ্যাকসিনই হয়তো করোনা নিরাময়ে কাজ করতে পারে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এদিকে যদিও করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক উদ্ভাবনে বিশ্বজুড়ে তোড়জোড় চলছে, তবে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন কার্যকরী একটি প্রতিষেধক উদ্ভাবন খুবই জটিল ও দীর্ঘস্থায়ী প্রক্রিয়া। করোনার চিকিৎসায় বড় পরিসরে কাজে লাগানো যেতে পারে এমন প্রতিষেধক উদ্ভাবনে ১২-১৮ মাস পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। একই সঙ্গে এ বছরের শেষের দিকে করোনার প্রতিষেধক চলে আসতে পারে বলেও আশা করছেন অনেকে। তবে করোনার প্রতিষেধক উদ্ভাবনের আগ পর্যন্ত ব্যাপক জনসচেতনতা ও বিভিন্ন দেশের সরকারের আগ্রাসী বিভিন্ন পদক্ষেপই হতে পারে প্রতিরোধের সবচেয়ে কার্যকরী উপায়। 

উল্লেখ্য, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত রাশিয়ায় ২৫৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন আর একজনের মৃত্যু হয়েছে। এদিকে, এ ভাইরাসে ২ লাখ ৭৬ হাজার ১০ জন আক্রান্ত হয়েছে। আর প্রাণহানি হয়েছে ১১ হাজার ৪০২ জনের। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ২০ জন আক্রান্ত হয়েছেন আর একজন মারা গেছেন এ ভাইরাসে।

Comments