বাগদাদের ব্যাটারি

View: 331

বাগদাদের ব্যাটারি

24 Aug, 2019    0


বাগদাদের ব্যাটারিপাত্রটি প্রাচীন যুগের ব্যাটারি।যা বর্তমানে বাগদাদের ব্যাটারি নামে পরিচিত।১৯৩৮ সালে ইরাক জাতীয় জাদুঘরের পরিচালক জার্মান প্রত্নতত্ত্ববিদ Dr, Wilhem Kanning জাদুঘর পরিদর্শনের সময় তাঁর চোখে পড়ে পার্সিয়ান যুগের একটি হলুদ পাত্রের উপর।পাত্রটি ১৯৩৬ সালে বাগদাদের নিকটবর্তী Khujut Rabu নামক গ্রাম থেকে মাটি খুড়ার সময় আবিষ্কার করা হয়।তিনি অবাক বিস্ময়ে লক্ষ্য করেন ৬ ইঞ্চি উচ্চতা বিশিষ্ট পাত্রটির ভিতর ৫ ইঞ্চি উঁচু ও দেড় ইঞ্চি বেড়ের কপার সিলিন্ডার এবং এর মাঝে একটি লোহার দন্ড বিদ্যমান।সিলিন্ডারটির নীচের অংশ কপার ডিস্ক দ্বারা আচ্ছাদিকত বিটুমিন দ্বারা সিলকৃত ।সিলিন্ডারটির কিনারা ৬০-৪০ লেড-টিন সংকর ধাতুর আস্তরে ঝালাইকৃত যা একটি আধুনিক ঝালাই এর সাথে তুলনীয়।উপরের অংশটিও বিটুমিন দ্বারা আচ্ছাদিত ছিল এবং ভিতরের রডটিতে এসিডিক এজেন্ট দ্বারা ক্ষয়ের সুষ্পষ্ট চিহ্ন বিদ্যমান। কপার এবং আয়রনের যুগল অবস্থা এবং এসিডিটির লক্ষণ দেখে কনিং মোটামুটি নিশ্চিত হন এই পাত্রটি বিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যবহার হত।এই নিয়ে আরো গবেষনা শেষে ১৯৪০ সালে তিনি লেখালেখি শুরু করেন। ১৯৪০ সালেই জেনারেল ইলেকট্রিক এর ইন্জিনিয়ার "Wilard F.M Grey "Kannig" এর লেখা পড়েন।তিনি জার্মান রকেট বিজ্ঞানী Willi Leyএর সহযোগীতায় বাগদাদ ব্যাটারির হুবহু একটি মডেল তৈরী করেন।কপার সালফেট দ্রবণ ব্যবহার করে তিনি হাফ ভোল্ট বিদুৎ উৎপাদনে সক্ষম হন।একই মডেলে ১৯৭০ সালেও ০.৮৭ ভোল্ট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়।এখন কথা হচ্ছে আমরা জানি ভোল্টা ১৮০০খ্রি: প্রথম ড্রাইসেল ব্যাটারি আবিষ্কার করেন।কিন্তু প্রাচীন এ ব্যাটারী আবিষ্কারের ফলে প্রমাণিত হয় ১৮০০ সালের আগেই পৃথিবীতে ব্যাটারি আবিষ্কৃত হয়েছিল। যা ব্যাটারি আবিষ্কারের ইতিহাসকে কমপক্ষে আরও ১৮০০ বছর পিছনে ফেলে দিবে।তাহলে প্রাচীন যুগে কি আমাদের জানার বাইরে এমন কোনো সভ্যতা ছিল যা জ্ঞান বিজ্ঞানে অনেক অগ্রসর ছিল?

 

তথ্যসুত্র: https://en.wikipedia.org/wiki/Baghdad_Battery

Comments