মোহাম্মদ আতাউল গনী ওসমানী নিয়ে কিছু কথা

View: 149

মোহাম্মদ আতাউল গনী ওসমানী নিয়ে কিছু কথা

02 Sep, 2019    0


মোহাম্মদ আতাউল গনী ওসমানী।

১৯১৮ সালের ১লা সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক, বাংলাদেশের সূর্যসন্তান, সিলেটের গৌরব জেনারেল এম.এ.জি ওসমানী।

জেনারেল ওসমানী ছিলেন চিরকুমার। পাকিস্তান মিলিটারী থেকে তিনি রিটায়ার করেছিলেন ১৯৬৭ সালে, কর্নেল হিসেবে। কিন্তু দেশের স্বাধীনতার টানে অবসর ভেঙে জেনারেল হিসেবে আবার মুক্তিকামী এক বাহিনীর নেতৃত্ব দেন এই ক্ষনজন্মা মানুষ। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারনের ক্ষেত্রে তৎকালীন ভারতীয় অনেক জেনারেল ছোটখাটো এই মানুষটির ব্যক্তিত্ব, রণকৌশল এবং দেশপ্রেমের তারিফ করেছেন। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে তিনি সংসদ সদস্য এবং কেবিনেট মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করে এম.এ.জি ওসমানী ১৯৭৫ সালের মে মাসে মন্ত্রীসভা ও সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন।

কষ্ট পাই যখন দেখি মুক্তিযুদ্ধকে অন্তরে লালন করা অনেকেই তার নামটা আজ ভুলে গেছে। আরও বেশী কষ্ট পাই যখন দেখি অনেকেই তার অবদানের কথা জেনেও না জানার ভান করছে। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল গঠিত মুজিবনগর সরকারে ওসমানীকে করা হয় মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি। ওসমানীর নির্দেশনা অনুযায়ী সমগ্র বাংলাদেশকে ১১টি সেক্টরে ভাগ করা হয়। রণনীতির কৌশল হিসেবে প্রথমেই তিনি সমগ্র বাংলাদেশকে ভৌগোলিক অবস্থা বিবেচনা করে ১১টি সেক্টরে ভাগ করে নেন এবং বিচক্ষণতার সঙ্গে সেক্টরগুলো নিয়ন্ত্রণ করতে থাকেন। মুক্তিযুদ্ধে এই বীর সেনানীর অবদান চিরস্মরণীয়।

ইতিহাস আপনাকে স্মরণ রাখবেই জেনারেল। অন্তত সিলেটের মানুষ কখনোই ভুলবেনা। সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে কিংবা ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আপনার নাম উজ্জ্বল হয়েই জ্বলবে।

স্যালুট আপনাকে...

Comments